Type Here to Get Search Results !

মাধ্যমিক ভৌত বিজ্ঞান সাজেশন ২০২৩ - তৃতীয় অধ্যায় - রাসায়নিক গণনা

মাধ্যমিক ভৌত বিজ্ঞান

তৃতীয় অধ্যায়

রাসায়নিক গণনা

Madhyamik Physical Science Suggestion 2023 WBBSE


'ক' বিভাগ

(১) বহু বিকল্পভিত্তিক প্রশ্ন। প্রতিটি প্রশ্নের নীচে চারটি করে বকল্প উত্তর দেওয়া আছে। যেটা ঠিক সেটি লেখোঃ

(১.১) ভর ও শক্তির তুল্যতা সমীকরণটি হল - 

(ক) E2=mc 

(খ) E= mc2 

(গ) E=m2c 

(ঘ) E=mc

উত্তরঃ (গ) E=mc2

(১.২) ভরের সংরক্ষণ সূত্রের প্রবর্তক হলেন - 

(ক) ডালটন 

(খ) প্রাউস্ট  

(গ) ল্যঁভয়সিয়ে 

(ঘ) আরহেনিয়াস

উত্তরঃ (গ) ল্যঁভয়সিয়ে

(১.৩) বায়ুর গড় বাষ্পঘনত্ব - 

(ক) ১৪.৪ 

(খ) ১৬.৫ 

(গ) ১৭.২ 

(ঘ) ২০.১

উত্তরঃ (ক) ১৪.৪

(১.৪) E=mc2 সমীকরণের সাথে কোন্‌ বিজ্ঞানীর নাম যুক্ত - 

(ক) নিউটন 

(খ) প্ল্যাঙ্ক 

(গ) অ্যাভোগাড্রো 

(ঘ) আইনস্টাইন

উত্তরঃ (ঘ) আইনস্টাইন

(১.৫) ১ মোল নাইট্রোজেন, ৩ মোল হাইড্রোজেনের সাথে যুক্ত হলে উৎপন্ন হবে - 

(ক) ১ মোল NH3 

(খ) ২ মোল NH3 

(গ) ৩ মোল NH3 

(ঘ) ৪ মোল NH3 

উত্তরঃ (খ) ২ মোল NH3

(১.৬) E=mc2 সমীকরনে E, m ও c হল  যথাক্রমে - 

(ক) ভর, শক্তি, শূন্য মাধ্যমে আলোর বেগ 

(খ) শূন্য মাধ্যমে আলোর বেগ ভর, শক্তি 

(গ) শক্তি, ভর, শূন্য মাধ্যমে আলোর বেগ 

(ঘ) শক্তি, শূন্য মাধ্যমে আলোর বেগ, ভর

উত্তরঃ (গ) শক্তি, ভর, শূন্য মাধ্যমে আলোর বেগ

(১.৭) কোনো গ্যাস বায়ুর চেয়ে ভারী বোঝা যায় - 

(ক) জলীয়বাষ্পে  

(খ) বাষ্পঘনত্বে 

(গ) চাপে (ঘ) ভরে

উত্তরঃ (খ) বাষ্পঘনত্বে

(১.৮) রাসায়নিক সমীকরন থেকে কোন্‌ বিষয়টি জানা যায় না - 

(ক) বিক্রিয়ক ও বিক্রিয়াজাত পদার্থের মোলসংখ্যা 

(খ) STP তে বিক্রিয়ক ও বিক্রিয়াজাত পদার্থের আয়তন 

(গ) বিক্রিয়ক ও বিক্রিয়াজাত পদার্থের গাঢ়ত্ব 

(ঘ) বিক্রিয়ক ও বিক্রিয়াজাত পদার্থের ভর   

উত্তরঃ (গ) বিক্রিয়ক ও বিক্রিয়াজাত পদার্থের গারত্ব

(১.৯) ৪ মোল জল উৎপন্ন করতে কত মোল H2 ও কত মোল O2 বিক্রিয়া করবে -

(ক) ২ মোল H2 ও ১ মোল O2 

(খ) ৪ মোল H2 ও 2 মোল O2 

(গ) ৮ মোল H2 ও ৪ মোল O2 

(ঘ) ১৬ মোল H2 ও ৮ মোল O2

উত্তরঃ (খ) ৪ মোল H2 ও ২ মোল O2

(১.১০) ৩৬ গ্রাম জল তৈরি করতে হাইড্রোজেন লাগবে -

(ক) ২ গ্রাম 

(খ) ৩ গ্রাম 

(গ) ৪ গ্রাম 

(ঘ) ৫ গ্রাম

উত্তরঃ (গ) ৪ গ্রাম

'ঘ' বিভাগ

(৪) নিম্নলিখিত প্রশ্নগুলির উত্তর দাওঃ

প্রশ্নঃ "রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ভরের সংরক্ষন হয়" - ব্যাখ্যা করো।

উত্তরঃ রাসায়নিক বিক্রিয়ক পদার্থ, বিক্রিয়াজাত পদার্থে রূপান্ত্রিত হয়। বিক্রিয়ার পূর্বে বিক্রিয়ক 

পদার্থের ভর যা ছিল, বিক্রিয়ার পরে বিক্রিয়াজাত পদার্থের ভর তার সমান হয়।

 অর্থাৎ, যদি  X এবং Y বিক্রায়া করে A এবং B উৎপন্ন করে, তবে রাসায়নিক বিক্রিয়াটির ক্ষেত্রে---

X+Y(ভর) = A+B(ভর)।

প্রশ্নঃ মোমবাতির দহনের ফলে ভরের হ্রাস পেলও কিভাবে ভরের সংরক্ষণ ঘটে?

 উত্তরঃ এক্ষেত্রে মোমবাতি জ্বালার সময় বাতাসের অক্সিজেনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে কার্বণ ডাই অক্সাইড

গ্যাস ও জলীয় বাষ্প উৎপন্ন করে, যেগুলি উৎপন্ন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাতাশে মিশে যায়। উৎপন্ন CO2

ও H2O এর ভর মাপা সম্ভব হলে দেখা যেত, মোমবাতি এবং তার সাথে যুক্ত O2 এর মোট ভর উৎপন্ন

CO2 ও H2O এর মোট ভরের সমান।

প্রশ্নঃ রাসায়নিক সমীকরণের কয়েকটি সীমাবদ্ধতা উল্লেখ করো?

উত্তরঃ রাসায়নিক সমীকরণের প্রধান সীমাবদ্ধতা গুলি হল ---

প্রথমত, বিক্রিয়ক ও বিক্রিয়াজাত পদার্থগুলির গাঢ়ত্ব জানা যায় না।

দ্বিতীয়ত, বিক্রায়াটির গতিবেগ সম্বন্ধে বা বিক্রিয়াটির সম্পূর্ণ হতে কত সময়ের প্রয়োজন তা জানা যায় না।

তৃতীয়ত,বিক্রিয়াটি সম্পূর্ণ হয়েছে কিনা তা জানা যায় না।

প্রশ্নঃ মোল কাকে বলে? 

উত্তরঃ  অ্যাভোগাড্রো সংখ্যক উপাদান কণিকা যেমন পরমাণু অনু আয়ন কোন পদার্থের যে পরিমাণ উপস্থিত থাকে সেই পরিমাণ কে মোল বলে।

প্রশ্নঃ ভরের নিত্যতা সূত্র কোন কোন ক্ষেত্রে প্রযোজ্য?

উত্তরঃ ভরের নিত্যতা সূত্র রাসায়নিক পরিবর্তন ও ভৌত পরিবর্তন উভয় পরিবর্তনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

প্রশ্নঃ পারমাণবিক ভর বলতে কী বোঝায়?

উত্তরঃ রাসায়নিক বিক্রিয়ায় কোনো মৌল একাধিক যৌগ গঠন করলে, যৌগগুলির মধ্যে মৌলটির সর্বাপেক্ষা কম যে ভর বর্তমান থাকে তাকেই উক্ত মৌলের পারমানবিক ভর বলে।

উদাহরণ : নাইট্রোজেনের পারমাণবিক ভর = 14।

প্রশ্নঃ বিক্রিয়াজাত পদার্থ বলতে কী বোঝায়?

উত্তরঃ যে সমস্ত পদার্থ বিক্রিয়া কালে উৎপন্ন হয় অর্থাৎ বিক্রিয়ার ফলে যে সমস্ত পদার্থ উৎপন্ন হয় তাদের বিক্রিয়াজাত পদার্থ বলে।

প্রশ্নঃ ভরের সংরক্ষণ সূত্র কাকে বলে?

উত্তরঃ ভৌত পরিবর্তন ও রাসায়নিক পরিবর্তনের আগে ও পরের বিক্রিয়ক ও বিক্রিয়াজাত পদার্থের মোট ভর  অপরিবর্তিত থাকে তাকে ভরের সংরক্ষণ সূত্র বলে।

প্রশ্নঃ রাসায়নিক সমীকরণ কাকে বলা হয়?

উত্তরঃ রাসায়নিক বিক্রিয়া অংশগ্রহণকারী পদার্থ গুলি ও বিক্রিয়াজাত অর্থাৎ বিক্রিয়ায় উৎপন্ন পদার্থ গুলি কে চিহ্ন ও সংকেত এর সাহায্যে প্রকাশ করে কোন রাসায়নিক বিক্রিয়াকে নির্দেশ করার পদ্ধতিকে রাসায়নিক সমীকরণ বলা হয়।

প্রশ্নঃ ভর ত্রুটি কাকে বলে?

উত্তরঃ রাসায়নিক বিক্রিয়ায় বা নিউক্লিয় বিক্রিয়ায় যতটুকু ভরের পরিবর্তন হয় তাকে ভর ত্রুটি বলা হয়।

প্রশ্নঃ শক্তির সংরক্ষণ সূত্রটি উল্লেখ করো?

উত্তরঃ শক্তির সংরক্ষণ সূত্রটি হল মহাবিশ্বে শক্তির মোট পরিমাণ ধ্রুবক থাকে শক্তি অবিনশ্বর, শক্তিকে সৃষ্টি বা ধ্বংস করা যায় না। শক্তি শুধুমাত্র এক শক্তি থেকে অন্য শক্তিতে রূপান্তরিত হয়ে থাকে।

প্রশ্নঃ C-12 স্কেলে কোনো মৌলের পারমাণবিক ভর এককের সংজ্ঞা দাও।

উত্তরঃ যে একক দ্বারা কোনো মৌলের একটি পরমাণুর প্রকৃত ভর প্রকাশিত হয় এবং যার মান 12C আইসোটোপের একটি পরমাণুর ভরের  অংশের সমান হয় তাকে পারমাণবিক ভর একক বলে। অর্থাৎ, পারমাণবিক ভর একক = 1টি 12C পরমাণুর প্রকৃত ভর।

প্রশ্নঃ রাসায়নিক বিক্রিয়া কাকে বলা হয়?

উত্তরঃ যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এক বা একাধিক পদার্থ বিভিন্ন শর্তাধীনে পরিবর্তিত হয় সম্পূর্ণরূপে ভিন্নধর্মী এক বা একাধিক মৌলিক বা যৌগিক পদার্থ উৎপন্ন করে সেই বিক্রিয়া কে রাসায়নিক বিক্রিয়া বলে।

প্রশ্নঃ গ্রাম-পারমাণবিক ভর কী? উদাহরণসহ লেখো।

উত্তরঃ কোনো মৌলের পারমাণবিক ভরকে গ্রাম এককে প্রকাশ করলে, সেই ভরের পরিমাণকে মৌলটির গ্রাম-পারমাণবিক ভর বলে।

N2-এর পারমাণবিক ভর = 14

1 গ্রাম-পরমাণু N2 = 14 গ্রাম নাইট্রোজেন।

প্রশ্নঃ গ্যাসের বাষ্প ঘনত্ব বা আপেক্ষিক ঘনত্ব বলতে কি বুঝ?

উত্তরঃ চাপ ও উষ্ণতা একই রেখে যে কোন গ্যাসের ভর আয়তন হাইড্রোজেন গ্যাসের ভরের তুলনায় যত গুণ ভারী হয়ে থাকে তাকে ওই গ্যাসটির বাষ্প ঘনত্ব বা আপেক্ষিক ঘনত্ব বলা হয়।

প্রশ্নঃ কোন গ্যাসীয় পদার্থের বাষ্প ঘনত্ব 13 হলে সেই গ্যাসীয় পদার্থের আণবিক সংকেত কত হবে?

উত্তরঃ ওই গ্যাসীয় পদার্থের আণবিক সংকেত হবে C2H6

প্রশ্নঃ ভর ও শক্তির তুল্যতা সূত্রটি উল্লেখ করো?

উত্তরঃ ভর ও শক্তির তুল্যতা সূত্রটি হল ভর ও শক্তির মোট পরিমাণ যেকোনো পরিবর্তনের আগে ও পরে সর্বদা সমান থাকে।

প্রশ্নঃ মোলের সংজ্ঞা দাও।

উত্তরঃ অ্যাভোগাড্রো সংখ্যক (6.023×1023) উপাদান কণিকা (পরমাণু, অণু, আয়ন) কোনো পদার্থের যে পরিমাণে উপস্থিত থাকে সেই পরিমাণকে এক মোল বলা হয়।

প্রশ্নঃ মহাবিশ্বে ভর ও শক্তির মোট পরিমাণ নির্দিষ্ট ও অপরিবর্তিত। উক্তিটি কোন সূত্রের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত?

উত্তরঃ উক্তিটি ভর ও শক্তির নিত্যতা সূত্রের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত।

প্রশ্নঃ রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ভরের সংরক্ষণ হয় কীনা তা একটি পরীক্ষার সাহায্যে বর্ণনা করো।

উত্তরঃ লোহায় মরচে পড়ার পরীক্ষার মাধ্যমে রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ভরের সংরক্ষণ সূত্রটি ব্যাখ্যা করা হল -

উপকরণ - একটি হার্ডগ্লাস টেস্টটিউব, কয়েকটি চকচকে লােহার পেরেক, জল, রবার কর্ক, তুলাযন্ত্র।

পরীক্ষা পদধতি - হার্ডগ্লাস টেস্টটিউবের মধ্যে সামান্য জল নিয়ে ওর মধ্যে কয়েকটি চকচকে লোহার পেরেক আংশিক ডুবিয়ে রাখা হল। রবারের কর্ক দিয়ে টেস্টটিউবের মুখটি বায়ুনিরুদ্ধ করে বন্ধ করে দেওয়া হল। এই অবস্থায় তুলাযন্ত্রে জল ও পেরেক সমেত টেস্টটিউবটির ভর মেপে কয়েকদিন রেখে দেওয়া হল। 

পর্যবেক্ষণ - কয়েকদিন পর দেখা গেল যে, লোহার পেরেকের গায়ে বাদামি রং-এর মরচে পড়েছে। এখন টেস্টটিউবের ভর আবার মাপা হলে দেখা যাবে আগের ভর ও পরের ভর একই আছে।

সিদ্ধান্ত - লোহার পেরেক, টেস্টটিউবের ভেতরে থাকা বায়ুর অক্সিজেন এবং জলীয় বাষ্পের সঙ্গে যুক্ত হয়ে মরচে উৎপন্ন করে। Fe + O2+ জলীয়বাষ্প → Fe203 + xH2O (মরচে), x = জল অণুর সংখ্যা। টেস্টটিউবের মধ্যে যেটুকু O2 অক্সিজেন এবং জলীয়বাষ্প কমে যায়, সেইটুকু অক্সিজেন এবং জলীয়বাষ্প লােহার সঙ্গে যুক্ত হয়ে মরচে উৎপন্ন করে। এই পরীক্ষায় রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ভরের সংরক্ষণ প্রমাণিত হল।

প্রশ্নঃ রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ভরের সংরক্ষণ হয়–ব্যাখ্যা করো।

উত্তরঃ রাসায়নিক বিক্রিয়ায় বিক্রিয়ক পদার্থ, বিক্রিয়াজাত পদার্থে রূপান্তরিত হয়। বিক্রিয়ার পূর্বে বিক্রিয়ক পদার্থের ভর যা ছিল, বিক্রিয়ার পরে বিক্রিয়াজাত পদার্থের ভর তার সমান হয়।

    যদি A এবং B বিক্রিয়া করে C এবং D উৎপন্ন করে, তবে রাসায়নিক বিক্রিয়াটির ক্ষেত্রে—A এর ভর + B এর ভর = C এর ভর + D এর ভর।

প্রশ্নঃ 9.6 গ্রাম অক্সিজেন প্রস্তুত করতে কত গ্রাম পটাশিয়াম ক্লোরেট প্রয়োজন? [K=39, Cl=35.5]

উত্তরঃ পটাশিয়াম ক্লোরেটের তাপীয় বিয়োজনে O2 প্রস্তুতির বিক্রিয়ায় রাসায়নিক সমীকরণটি হল -

2KCIO3 = 2KCl + 3O2

=245g        = 96g

ওপরের সমীকরণ অনুযায়ী ,

96g O2 তৈরি করতে KClOO3 প্রয়োজন = 245g

∴ 9.6g O2 তৈরি করতে প্রয়োজনীয় KClO3-এর পরিমাণ = 

245 × 9.6

96g = 24.5g

প্রশ্নঃ 9.6 গ্রাম অক্সিজেন প্রস্তুত করতে কত গ্রাম পটাশিয়াম ক্লোরেট প্রয়োজন? [ K=39,Cl=35.5]

উত্তরঃ পটাশিয়াম ক্লোরেটের তাপীয় বিয়োজনে O2 প্রস্তুতির বিক্রিয়ার রাসায়নিক সমীকরণটি হল--

   2KClO3---->2KCl+3O2

ওপরের সমীকরণ অনুসারে , 96g O2 প্রস্তুত করতে KClO3 প্রয়োজন=245g

.'. 9.6g O2 প্রস্তুত করতে প্রয়োজনীয়  KClO3 এর পরিমান= 245⁰9.6/96g=24.5g।

Madhyamik Suggestion 2023 Download PDF

প্রশ্নঃ 20 গ্রাম ক্যালশিয়াম কার্বনেটকে উত্তপ্ত করলে কত ভরের ক্যালশিয়াম অক্সাইড পাওয়া যাবে? এক্ষেত্রে STP তে কত আয়তন CO2 উৎপন্ন হবে? ধরে নাও ক্যালশিয়াম কার্বনেটের সম্পূর্ন বিয়োজন হয়েছে?[Ca=40, C=12, O=16]

উত্তরঃ CaCO3--->CaO+CO2

100g CaCO3 কে উত্তপ্ত করলে CaO পাওয়া যায়=56g

.'. 20g CaCO3 কে উত্তপ্ত করলে CaO পাওয়া যায়=56*20/100g=11.2g

.'.CO2 উৎপন্ন হবে=(20-11.2)g=8.8g

STP তে 44g CO2 এর আয়তন=22.4L

STP তে 8.8g CO2 এর আয়তন=22.4*8.8/44=4.48L

প্রশ্নঃ 15.9g গ্রাম কপার সালফেট ও 10.6g সোডিয়াম কার্বনেট বিক্রিয়া করে 14.2g সোডিয়াম সালফেট ও 12.3g কপার কার্বনেট উৎপন্ন করে। দেখাও যে, এই তথ্যগুলি রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ভরের সংরক্ষনকে সমর্থন করে?

উত্তরঃ প্রদত্ত বিক্রিয়ায় বিক্রিয়কগুলির মোট ভরঃ

      কপার সালফেটের ভর     = 15.9 g

     সোডিয়াম কার্বনেটের ভর = 10.6 g

----------------------------------------------------

    বিক্রিয়কগুলির মোট ভর  = 26.5 g

বিক্রিয়াজাত পদার্থগুলির মোট ভরঃ

        সোডিয়াম সালফেটের ভর = 14.2 g

        কপার কার্বনেটের ভর        = 12.3 g

----------------------------------------------------

বিক্রিয়াজাত পদার্থের মোট ভর =26.5 g

প্রদত্ত বিক্রিয়ায়, বিক্রিয়কগুলির মোট ভর = বিক্রিয়াজাত পদার্থগুলির মোট ভর

প্রশ্নঃ 7 গ্রাম হাইড্রোজেন গ্যাস প্রস্তুত করতে কত গ্রাম অবিশুদ্ধ জিংক প্রয়োজন? অবিশুদ্ধ জিংকে 88% জিংক বর্তমান।[ Zn=65.5]

উত্তরঃ Zn+H2SO4--->ZnSO4+H2

 উপরের সমীকরণ অনুসারে,

 2g H2 উৎপন্ন করতে Zn প্রয়োজন=65.5g

.'. 7g H2 উৎপন্ন করতে Zn প্রয়োজন=65.5/2*7g=229.25g

এখন, 88g বিশুদ্ধ Zn আছে 100g অবিশুদ্ধ Zn এর নমুনায়

.'. 229.25g বিশুদ্ধ Zn আছে 100*229.25/88g = 260.51g অবিশুদ্ধ Zn

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

LightBlog

Below Post Ad

LightBlog

AdsG

close